শেখ হাসিনা বিশ্ব মানবতার প্রতীক ……. মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক এম.পি

শেখ হাসিনা বিশ্ব মানবতার প্রতীক ……. মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক এম.পি

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক এম.পি বলেছেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা বিশ্ব মানবতার প্রতীক। তিনি পার্বত্য তিন জেলায় শান্তি চুক্তির মাধ্যমে ১৯৯৮ সালে সশস্ত্র, উগ্র, সহিংস গোষ্ঠিকে নিরস্ত্র করে শান্তি প্রতিষ্ঠা করেন। ভারতের সাথে বাংলাদেশের স্থল সীমানা সংক্রান্ত জটিলতা নিরসন করে বঙ্গবন্ধুর স্থল সীমানা চুক্তি অনুযায়ী ছিটমহল সমস্যার সমাধান করে ওই এলাকায় শান্তি প্রতিষ্ঠা করেছেন। বর্তমানে বাংলাদেশের নাগরিক না হলেও নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের সংকট নিরসনে তিনি বিশ্বব্যাপী তৎপরতা চালাচ্ছেন। তার কার্যকর পদক্ষেপে বিশ্ববিবেক ইতিমধ্যে জাগ্রত হয়েছে। মায়ানমারে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্যে জননেত্রী শেখ হাসিনা গৃহীত পদক্ষেপ বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হচ্ছে। তিনি জাতিসংঘের ৭২তম সাধারণ অধিবেশনে মায়ানমারের রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে ৫ দফা প্রস্তাব দিয়েছেন। যা বিশ্বের সর্বস্তরে প্রশংসিত হচ্ছে। শেখ হাসিনা বর্তমানে শুধু বাংলাদেশ বা বাঙালি জাতির নেতা নয়, তিনি বিশ্ব নেতা হিসেবে ইতিমধ্যেই স্বীকৃতি লাভ করেছেন। শেখ হাসিনা একজন মানবিক গুণাবলী সম্পন্ন উৎকৃষ্টতম নেতা। মানুষের মানবিক মর্যাদা, সাম্য, গণতন্ত্র, গণতান্ত্রিক বিধি-ব্যবস্থা ও মানবাধিকার সুনিশ্চিত করতে তিনি নিরলসভাবে কাজ করছেন। বঙ্গবন্ধুর যোগ্য উত্তরসূরী হিসেবে তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ধারক-বাহক। শেখ হাসিনার গুণাবলী নতুন প্রজন্মসহ সকলের মধ্যে প্রসারিত করতে হবে। তিনি শেখ হাসিনার সুস্বাস্থ্য কামনা করে বলেন, মুক্তিযুদ্ধের লক্ষ্য-উদ্দেশ্য এবং একটি সমৃদ্ধ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করতে তার কোন বিকল্প নেই। আসন্ন একাদশ সংসদ নির্বাচনে শেখ হাসিনা ও তার মনোনীতদের দেশ পরিচালনার সুযোগ দেয়ার জন্য তিনি সকলের প্রতি আহ্বান জানান।

বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর জ্যেষ্ঠ কন্যা, প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ৭১তম জন্মদিন উপলক্ষে ২৮ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার সকালে ঢাকার সেগুনবাগিচাস্থ ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির তৃতীয় তলার স্বাধীনতা মিলনায়তনে ‘জননেত্রী শেখ হাসিনা ও মানবতা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি লায়ন মো. গনি মিয়া বাবুল এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সংসদ সদস্য এডভোকেট নাভানা আক্তার, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইসমাইল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব চিকিৎসা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি অধ্যাপক ড. শহীদুল্লাহ শিকদার ও জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন।

সভাপতির বক্তব্যে লায়ন মো. গনি মিয়া বাবুল বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা মানবিক গুণাবলীতে উজ্জীবিত একজন সর্বশ্রেষ্ঠ জনহিতকর নেতা। তিনি মানুষের ভোট ও ভাতের অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলন করে ইতিমধ্যে সফলতা লাভ করেছেন। বাংলাদেশ বর্তমানে বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল। রোহিঙ্গাদের মানবিক বিবেচনায় সাময়িকভাবে বাংলাদেশে আশ্রয় ও প্রয়োজনীয় অন্ন, বাসস্থান, চিকিৎসা প্রদান করে শেখ হাসিনা বিশ্বে এখন মানবতার পথিকৃৎ হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছেন। তিনি উত্তম গুণাবলী ও একজন পরিশুদ্ধ মানুষ।

আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন গণআজাদী লীগের মহাসচিব আতাউল্লাহ খান, বিশ্ব বাঙালি সম্মেলনের সভাপতি কবি মুহম্মদ আবদুল খালেক, স্বাধীনতা ব্যাংকার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি লায়ন হামিদুর রহমান সখা, সংগঠনের প্রচার সম্পাদক এডভোকেট খান চমন-ই-এলাহী, পাঠাগার সম্পাদক মো. কামাল হোসেন খান, নির্বাহী সদস্য মো. দুলাল মিয়া, মো. মাসুদ আলম, চাঁদপুর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান সউদ, সহ সভাপতি মো. হাবিবুর রহমান প্রমুখ। আলোচনা শেষে দেশ ও জাতির সমৃদ্ধি এবং শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু কামনা করে বিশেষ দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন লায়ন মো. গনি মিয়া বাবুল।

Leave a reply

Minimum length: 20 characters ::